বিশ্বকাপ থেকে বাদ অ্যালেক্স হেলস

স্পোর্টস রিপোর্টার: বিনোদনমূলক ড্রাগস নিতে গিয়ে ধরা পড়েছেন। তাই নিষিদ্ধ হয়েছিলেন ২১ দিনের জন্য। এবার সেই নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়ে দিল ইসিবি। অ্যালেক্স হেলস বাদ পড়লেন বিশ্বকাপ দল থেকেই।

আজ দুপুরে প্রকাশিত হয়েছে ইসিবির আনুষ্ঠানিক বিবৃতি। সেটা অনুযায়ী, এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের পুরুষ ক্রিকেট ডিপার্টমেন্টের ডিরেক্টর অ্যাশলে গিলস। নির্বাচকরাও মনে করছেন, দলের জন্য এই মুহুর্তে হেলসকে বাদ দেয়াই ভালো। ‘আমরা দলের মাঝে ভালো একটি পরিবেশ তৈরি করতে চেয়েছি। কোনো বাড়তি ঝামেলা যাতে না থাকে, সেটাই নিশ্চিত করতে চাই আমরা। দল যাতে ভালো অবস্থায় বিশ্বকাপ শুরু করতে পারে, সেটাই আমাদের মূল লক্ষ্য।’

সামনে ইংল্যান্ড আয়ারল্যান্ডে একটি ওয়ানডে খেলতে যাবে। তারপর পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে সিরিজ এবং সর্বশেষ বিশ্বকাপ। এর কোনোটিই আর খেলছেন না হেলস। তাকে প্রাথমিক বিশ্বকাপের দল থেকেও বাদ দেয়া হয়েছে।

অ্যাশলে গিলস বলেন, ‘আমরা অনেক ভেবেচিন্তে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা অনেক কষ্টে দলে একটি সুন্দর পরিবেশ তৈরি করেছি, এবং এটি গুরুত্বপূর্ণ। এটাই দলের জন্য সবচেয়ে ভালো। যাতে তাদের সামনে কোনো ঝামেলা না থাকে এবং তারা পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে প্রস্তুতি নিতে পারে।’

‘তবে এটাও মনে রাখতে হবে, আমরা চাই হেলসের ক্যারিয়ার যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এটাই তার জন্য শেষ নয়। ইসিবি এবং পিসিএ তার ভালোর জন্য সবকিছু করতে রাজি। তার ক্লাব নটিংহামশায়ারের পাশাপাশি আমরাও সে যাতে তার প্রতিভার ব্যবহার পুরোপুরি করতে পারে, সেই চেষ্টা করে যাবো।’, বিবৃতিতে জানান গিলস। এই সপ্তাহের মাঝেই পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের জন্য হেলসের বিকল্প ঘোষণা করবে ইসিবি।

গত সপ্তাহে হঠাতই নিজের কাউন্টি ক্লাব নটিংহামশায়ারের থেকে ব্যক্তিগত কারণের নামে ছুটি নেন হেলস। পরে জানা গেল, বিনোদনমূলক মাদক নেয়ার কারণে ২১ দিন নিষিদ্ধ হয়েছেন তিনি। কিন্তু এর মাঝে হেলস, নটিংহাম কিংবা ইসিবি, কেউ এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি। নিয়মিত ড্রাগ টেস্টের অংশ হিসেবেই পরীক্ষা করা হয়েছিল তাকে। সে ড্রাগ টেস্টে দুইবার পজিটিভ আসে হেলসের।

এর আগেও নানা শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এসেছে হেলসের বিপক্ষে। এসব কারণে আগেও নিষিদ্ধ হয়েছেন তিনি। ডিসেম্বরে নাইট ক্লাবে বেন স্টোকসের সাথে তার বিপক্ষেও মারামারি অভিযোগ প্রমাণিত হওয়াতে তাকে ছয় ম্যাচ নিষিদ্ধ করে ইসিবি। সেই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরে দলে নিয়মিত হতে পারেননি তিনি। টপ অর্ডারে জনি বেয়ারস্টো এবং জেসন রয়ের ভালো ফর্মের কারণে দলের বাইরে সময় কাটাতে হয়েছে তাকে।

তবে হেলসের বিকল্প খুঁজতে বেগ পেতে হবে ইংল্যান্ডকে। তার সামর্থ্য নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগই নেই। গত বছর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৮১ রানের স্কোরের বিশ্ব রেকর্ডের ম্যাচে তার ৯৭ বলে ১৪৭ রানের ইনিংসই সেটা প্রমাণ করে। তার সবচেয়ে সহজ বিকল্প ছিলেন স্যাম বিলিংস। সম্প্রতি ঘাড়ের চোটে পুরো মৌসুমের জন্যেই মাঠের বাইরে ছিটকে গেছেন তিনি।

বিকল্প হিসেবে দলে আসতে পারেন জেমস ভিন্স, যিনি গত সপ্তাহেই ১৯০ রানের একটি ইনিংস খেলেছেন। মে মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত দলে বদল আনতে পারবে ইসিবি।

print