অনৈতিক কর্মকান্ড : দলের সঙ্গে সাব্বিরের চুক্তির ৩০, আল আমিনকে ৫০ ভাগ জরিমানা

স্পোর্টস রিপোর্টার : মাঠের শৃঙ্খলা ভঙ্গায় রাতে ম্যাচ ফির ১৫ শতাংশ জরিমানা হয়েছে। শাস্তিটা খুবই সামান্য। ম্যাচ রেফারির ওই শাস্তি মেনে নিয়েছেন সাব্বির রহমান। কিন্তু মাঠের বাইরের ঘটনার জন্য বিশাল টাকা জরিমানা গুণতে হচ্ছে রাজশাহীর এই ক্রিকেটারকে। অনৈতিক কাজের শাস্তি হিসেবে তার চুক্তির ৩০ শতাংশ জরিমানা করেছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। একই অপরাধের জন্য বরিশাল বুলসের পেসার আল আমিন হোসেনের চুক্তির ৫০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই দুই ক্রিকেটারকে জরিমানার বিষয়টি জানায়। সাব্বির ‘এ’ প্লেস গ্রেডের ক্রিকেটার। রাজশাহী কিংসের সঙ্গে ৪০ লাখ টাকায় চুক্তিবদ্ধ তিনি। এর ৩০ শতাংশ অর্থ তিনি পাবেন না। আল আমিন হোসেন ‘এ’ গ্রেডের ক্রিকেটার। ২৫ লাখ টাকা তার সম্মানী। সাড়ে ১২ লাখ টাকা জরিমানা দিচ্ছেন তিনি।

al-amin-01

শৃঙ্খলাজনিত কারণে এর আগেও শাস্তি ভোগ করেছেন আল আমিন হোসেন। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপ চলাকালে অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছিলো তাকে। নিজের ভুলে বিশ্বকাপের মতো টুর্নামেন্টে ম্যাচ খেলা হয়নি তার। এরপরও ঠিক হননি জাতীয় দলের এ পেসারের। শৃঙ্খল জীবনযাপন না করায় সম্প্রতি মাঠেও ছন্দ দেখাতে পারছেন না তিনি। জাতীয় দল থেকেও বাদ পড়েছেন। পরিবার থাকতেও নারীঘটিত সম্পর্কে জড়াচ্ছেন তিনি। ভবিষ্যতে জাতীয় দলে ফেরার পথে এটা কাটা হয়ে দাঁড়াতে পারে আল আমিনের জন্য।

সাব্বিরের বিরুদ্ধে এ ধরণের অনৈতিক কার্মকান্ডের গুঞ্জন এতোদিন শুনে এসেছে বিসিবি। জাতীয় দলের ড্রেসিংরুমে এ নিয়ে বেশ মুখরোচক আলোচনা হয়। বিপিএল টুর্নামেন্ট চলাকালে চট্টগ্রামে টিম হোটেলে অনৈতিক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠে তার বিরুদ্ধে। হোটেলের নিরাপত্তা কর্মকর্তারা এ বিষয়টি ফ্র্যাঞ্চাইজিকে জানায়। এরপর ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষ থেকে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলে লিখিত রিপোর্ট দেয়া হয়। তার ভিত্তিতে তদন্ত করে দেশের দুই ক্রিকেটারকে আর্থিক দন্ড দেয় বিসিবি।

জাতীয় দলের ক্রিকেটার হিসেবে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলে কঠিন শাস্তি দেয়া হবে বলে সতর্ক করে দেয়া হয়েছে সাব্বির এবং আল আমিনকে।

scroll to top