‘সাগর অর্থনীতির বিপুল সম্ভাবনা কাজে লাগানোর সামর্থ্য বাংলাদেশের নেই’

Finance-Minister-01.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাগর কেন্দ্রিক অর্থনীতির অপার সম্ভাবনা থাকলেও তার সিকিভাগ অর্জনের সামর্থ্য নেই বাংলাদেশের। এ বিষয়ে দক্ষতা অর্জনে বিশেষ গুরুত্ব দেয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের। তবে সম্পদ সংগ্রহ করতে গিয়ে যাতে দূষণ, অপচয় কিংবা অন্য সম্পদ নষ্ট না হয় সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। দক্ষতা অর্জনে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা করা হবে বলে আশ্বাস অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের। প্রাণিবজ্ঞান সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভার ব্লু ইকোনোমি নিয়ে আয়োজিত সেমিনারে এসব কথা ওঠে এসেছে।

মিয়ানমার ও ভারতের সাথে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তির পর বঙ্গোপোসাগরে ১ লাখ ১৮ হাজার  বর্গকিলোমিটারের বেশি সুবিশাল জলরাশির সার্বভৌমত্ব পেয়েছে বাংলাদেশ। যা ভৌগলিক আয়তনের ৮০ ভাগের বেশি। সুবিশাল এই জলরাশিতে যেমন আছে মাছ তেমনি এর তলদেশে রয়েছে কোটি কোটি টাকার সম্পদ। তবে এর খুব সামান্যই সংগ্রহ করতে পারছে বাংলাদেশ। পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম ইউনিটের সচিব রিয়ার এডমিরাল খোরশেদ আলম বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় সমুদ্র থেকে সবচেয়ে কম সম্পদ আহরণ করে বাংলাদেশ।

সমুদ্রসম্পদ সংগ্রহের অপার সম্ভাবনার পাশাপাশি চ্যালেঞ্জেও রয়েছে। পৃথিবী জুড়েই সমুদ্রে যে হারে প্লাষ্টিক আবর্জনা ফেলা হচ্ছে তাতে ২০৫০ সাল নাগাদ মাছের চেয়ে এই বর্জ্যের পরিমাণই বেশি হবে। তখন হয়তো জালে মাছের চেয়ে এই বর্জ্য বেশি পাওয়া যাবে বলে মনে করেন খোরশেদ আলম। এছাড়া আগ্রাসী ভাবে সমুদ্র সম্পদ সংগ্রহ করায় ইকোসিস্টেম নষ্ট হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। এসব বিষয়ে এখন থেকেই বাংলাদেশকে সজাগ থাকার পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারি অধ্যাপক সেলিমা খাতুন।

তিনি বলেন, এখন সময় হুজুগ উঠলো ব্যাঙের পা রপ্তানি করলে অনেক আয় হবে। আয় কতটুকু হয়েছে তা জানা না গেলেও অধিকহারে ব্যাঙ ধরার কারণে ক্ষতিকারক পোকামাকড়ের সংখ্যা বেড়ে ফসল নষ্ট হয়েছে। আবার ফসল বাঁচাতে অধিকারহারে কীটনাশক ব্যবহার পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি করছে। এজন্যই সমুদ্র থেকে সম্পদ আহরণের সময় অন্য সম্পদ নষ্ট না হওয়ার বিষয়টি খেয়াল রাখার পরামর্শ দিয়েছেন অধ্যাপক সেলিমা খাতুন।

বাংলাদেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে যেতে সমুদ্র সম্পদ বড় ধরনের ভূমিকা রাখবে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, এ বিষয়ে জ্ঞান অর্জনে চেষ্টা করা হচ্ছে। সেই সাথে সক্ষমতা অর্জনেই কাজ করছে সরকার। দুই দিনের এই সম্মেলন থেকে প্রাণিবিজ্ঞানীদের তুলে ধরে পরামর্শগুলো সরকার বিবেচনা করবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

Share this post

scroll to top