এখনই মার্কিন কূটনীতিকদের বহিষ্কার করছেন না পুতিন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ৩৫ মার্কিন কূটনীতিককে বহিষ্কারের কথা ঘোষণা দিলেও এখনই তা বাস্তবায়ন করছেন না বলে জানিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। শুক্রবার মার্কিন কূটনীতিকদের বহিষ্কার করার কথা জানিয়েছিলেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সারজে ল্যাভরভ। যুক্তরাষ্ট্র ৩৫ রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কারের ঘোষণার দেয়ার পরপরই রাশিয়াও প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ হিসেবে সমসংখ্যক মার্কিন কূটনীতিককে বহিস্কারের ঘোষণা দিয়েছিল।

ট্রাম্প ক্ষমতায় বসায় আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে চাইছেন সাবেক কেজিবি প্রধান পুতিন। আগামী ২০ জানুয়ারি ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকার নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। এরপরই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে পুতিন। তিনি বলেছেন, আমেরিকান কূটনীতিকদের জন্য তিনি কোনো ধরনের সমস্যা তৈরি করতে চান না। কাউকে বহিষ্কারও করতে চান না।

কুটনীতিকদের বিষয়ে ভ্লাদিমির পুতিনের দেয়া এক বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে, নতুন বছরের ছুটির মওশুমে আমেরিকান কূটনীতিকরা পরিবার ও ছেলেমেয়ে নিয়ে যেসব জায়গায় ছুটি কাটাচ্ছেন সেগুলোও তারা বন্ধ করছেন না। বরং আমেরিকান কূটনীতিকদের পরিবারগুলোকে ক্রেমলিনে বড়দিনের উৎসবে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন ট্রাম্পের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হওয়া ভ্লাদিমির পুতিন।

পুতিনের এই বিবৃতি দেয়ার আগে শুক্রবার সকালের দিকে এক টেলিভিশন ভাষণে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সারজে ল্যাভরভ জানিয়েছিলেন, তার মন্ত্রণালয় প্রেসিডেন্ট পুতিনকে রাশিয়া থেকেও ৩৫ জন আমেরিকান কূটনীতিককে বহিষ্কারের পরামর্শ দিয়েছে। আন্তর্জাতিক রীতি মেনেই এই পাল্টা জবাব দেয়ার পরামর্শের কথা জানিয়েছিলেন তিনি। মার্কিন কুটনীতিককদের ছুটি কাটানোর কটেজ ও ওয়্যারহাউস বন্ধ করে দেয়ারও পরামর্শ দেয়া হয়।

শুক্রবার রুশ প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ এক প্রতিক্রিয়া বলেন, বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তার মেয়াদের শেষ সময়ে এসে রাশিয়ার বিরোধিতায় নেমেছেন। তিনি একে রুশ-বিদ্বেষী মৃত্যু ঘন্টা বলে মন্তব্য করেন। যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগ, সদ্যসমাপ্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছে। আর এই সন্দেহে শাস্তি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত ৩৫ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ওয়াশিংটন ডিসির রুশ দূতাবাসে এবং সানফ্রান্সিকোর কনসুলেটে কর্মরত ৩৫ জন কূটনীতিককে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে ৭২ ঘন্টার মধ্যে তাদের পরিবারসহ আমেরিকা ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেয় যুক্তরাষ্ট্র। মেরিল্যান্ড এবং নিউইয়র্কে গোয়েন্দা তথ্য কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হত এমন দুটি রুশ কম্পাউন্ডও বন্ধ করে দেয়ার কথা বলা হয়েছে। রুশ গোয়েন্দা সংস্থার সাথে সম্পৃক্ত নয়টি সংস্থা ও ব্যক্তির ওপরেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে ওবামা আগেই বলেছিলেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে তার প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। দেশটির অভিযোগ হিলারি ক্লিন্টনের প্রচারণা শিবির ও ডেমোক্রাটিক ন্যাশনাল কমিটির সার্ভার হ্যাক করে স্পর্শকাতর তথ্য উইকিলিকসকে ব্যবহার করে ছড়িয়ে দিয়েছে রাশিয়া। নির্বাচনী ব্যবস্থাও রাশিয়ার হ্যাকররা হ্যাক করেছে বলে অভিযোগ। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে দেশটি।

scroll to top