অভিন্ন হারে মূসক আদায় ব্যবস্থা চালু

muhit.jpg

অভিন্ন হারে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) আদায় রীতি চালু করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।
বুধবার রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে নতুন মূসক আইনের ওপর জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়োজিত দিনব্যাপী কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, ‘মূসক অত্যন্ত ভালো করব্যবস্থা । বিশ্বব্যাপী প্রবণতা হচ্ছে-অভিন্ন হারে মূসক নির্ধারণ। এতে অনেক সুবিধা আছে। এজন্য আমরা ঠিক করেছি অভিন্ন হারে মূসক নির্ধারণ করবো। এতে ব্যবসায়ীরা কিছু রেয়াত সুবিধাও পাবেন।’ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক টার্নওভার ২৪ লাখ টাকা হলে মূসক আদায়ের আওতায় আসতো। এখন এই সীমা বাড়িয়ে ৩৬ লাখ টাকা করা হবে। রাজস্ব আয়ের ক্ষেত্রে মূসকের গুরুত্ব প্রতিনিয়ত বাড়ছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আগে রাজস্ব আয়ের বড় উত্স ছিল কাস্টমস। এখন সেটা কমে এসেছে। বর্তমানে মূসক রাজস্ব আয়ের সবচেয়ে বড় উত্স। মোট রাজস্ব আয়ের ৩৮ শতাংশ আসছে মূসক থেকে। আয়কর থেকে আসে ৩৫ শতাংশ।’অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী মাস থেকে পরবর্তী বাজেট আলোচনা শুরু হবে। সেখানে মূসক হার নির্ধারণের বিষয়ে এনবিআর কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা হবে।’তিনি বলেন, ভবিষ্যতে এই দুই কর ব্যবস্থা এবং বিভিন্ন ধরনের সার্ভিস চার্জ হবে রাজস্ব আয়ের মূল স্তম্ভ। তিনি দেশের উন্নয়নের স্বার্থে সবাইকে কর দেয়ার আহবান জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি কর্মকান্ড বিস্তৃত না হলে উন্নয়ন হয় না। এজন্য আমরা ক্ষমতায় এসে ২০০৯ সালে ৯০ হাজার কোটি টাকার যে বাজেট দিয়েছিলাম, ক্রমান্বয়ে তার পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। এখন আড়াই লাখ কোটি টাকার বাজেট। বর্তমান মেয়াদের শেষদিকে এর আকার দ্বিগুণ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।’এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশনের (এফবিসিসিআই) সভাপতি কাজী আকরামউদ্দিন আহমেদ ও এনবিআর সদস্য (মূসক) ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর আলম বক্তব্য রাখেন।
উল্লেখ্য, নতুন মূসক আইন ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।

Share this post

scroll to top