পুঁজিবাজার : আস্থার সংকটে সূচক পড়ছেই

নিজস্ব প্রতিবেদক : পতন থামছে না দেশের পুঁজিবাজারে। সোমবার সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসেও বড় পতন দিয়ে শেষ হয়েছে লেনদেন। ঢাকায় সূচক পড়েছে ৫০ পয়েন্টের বেশি আর চট্টগ্রামে প্রায় একশো পয়েন্ট। বিনিয়োগকারীদের আস্থার সংকট এমন পতনের কারণ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, কৌশলগত মালিকানাসহ নানা কারণে বাজারে ধুম্রজাল তৈরি হওয়ায় বিনিয়োগকারীদের আস্থায় চিড় ধরেছে।

ব্যাংক আমানতের সুদহার বাড়ার কারণকেও সামনে আনছেন বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, ব্যাংকে আমানতের সুদ বাড়ায় নতুন করে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বাজারমুখো হচ্ছেন না। অন্যদিকে, যারা বাজারে আছেন তারাও নিরাপদ বিনিয়োগের জন্য শেয়ার বিক্রি করে ব্যাংকে টাকা রাখতে শুরু করছেন। নগদ টাকার সংকটে পড়া প্রায় সব ব্যাংকই আমানতের সুদহার বাড়িয়েছে।

বাজারের এমন পরিস্থিতিতে ভালো ও মানসম্পন্ন প্রতিষ্ঠানকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত করার পরামর্শ এসেছে। তবে এক গবেষণায় দেখা গেছে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের চারভাগের একভাগের অবস্থাই ভালো নয়। দুর্বল মৌলভিত্তির এসব প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণ করতে পারছে না। উল্টো একটি গ্রুপ এসব দুর্বল শেয়ার কেনাবেচার মাধ্যমে বাজার কারসাজি করছে।

বাজারে ভালো শেয়ারের খরা কাটাতে আগামি মাসেই আসছে ইন্ট্রোকো গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং স্টেশন লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি ফিক্সড প্রাইস মেথডে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে বাজার থেকে ৩০ কোটি টাকা ওঠাবে বলে সোমবার ডিএসই সূত্রে জানা গেছে। এদিকে, প্রাথমিক গণপ্রস্তাব সম্পন্ন করা বস্ত্রখাতের প্রতিষ্ঠান কুইন সাউথ টেক্সটাইল তালিকাভুক্তির অনুমতি পেয়েছে।

সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৫৭.৫৫ পয়েন্ট পড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৭৭৪ পয়েন্টে। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক ৯৭.৬২ পয়েন্ট পড়ে হয়েছে ১০ হাজার ৭৭০ পয়েন্ট। এদিন ঢাকায় আগের দিনের তুলনায় লেনদেন কিছুটা কমে হয়েছে সাড়ে তিনশো কোটি টাকা। চট্টগ্রামেও লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কমেছে। সোমবার এই বাজারে প্রায় ১৫ কোটি টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে।

এদিন লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে বেশিরভাগেরই দাম কমেছে। ঢাকায় লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে মাত্র ৩৮টির, কমেছে ২৪৯টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৪৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে দাম বেড়েছে মাত্র ৩৪টির, কমেছে ১৬১টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৭টি।

আর্থিক খাতের প্রতিষ্ঠান জিএসপি ফাইন্যান্স শেয়ারহোল্ডারদের জন্য সাড়ে ২৩ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ডিসেম্বরে শেষ হওয়া প্রতিষ্ঠানটির আর্থিক বছরের জন্য বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হবে আগামি ১৪ মার্চ রাজধানীর কাকরাইলের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে। সোমবার ছিল প্রতিষ্ঠানটির রেকর্ড ডেট। আরেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইপিডিসি ফাইন্যান্স ২০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। প্রতিষ্ঠানটির রেকর্ড ডেট ২৭ ফেব্রুয়ারি আর এজিএম অনুষ্ঠিত হবে আগামি ২৫ মার্চ। এ ছাড়াও প্রাইম ইন্স্যুরেন্স ১৫ শতাংশ নগদ, গ্রিনডেল্টা ইন্স্যুরেন্স ২০ শতাংশ নগদ ও লংকাবাংলা ফাইন্যান্স সাড়ে ৭ শতাংশ নগদ ও সাড়ে ৭ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে।

print