ব্যাংকের শেয়ারের দাম বাড়ায় পুঁজিবাজারে উত্থান

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঁজিবাজারের আচরণ ঠিক বুঝে ওঠতে পারছেন না সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। ধারাবাহিক কোনো আচরণে নেই বাজার। একদিন উত্থান তো আরেক দিন পতন। বাজারের এই ওঠানামাকে বিনিয়োগকারীদের অস্থির মানসিকতার বহি:প্রকাশ হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। অনেকটা গুজবে কান দিয়ে কিংবা অন্যের দেখাদেখি শেয়ার কেনা বা বিক্রির সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা।

সপ্তাহের প্রথম দিন রোববার বাজারে ছিল বড় পতন। সোমবার উল্টো চিত্র। বড় উত্থান দিয়ে শেষ হয়েছে দুই বাজারের লেনদেন। রোববার ঢাকায় ২৬ আর চট্টগ্রামে ৫০ পয়েন্টের বেশি সূচকের পতন হয়েছিল। তবে সোমবার সূচক ঢাকায় ৩১ পয়েন্ট ও চট্টগ্রামে প্রায় ৬৭ পয়েন্ট বেড়েছে। ঢাকায় ঢাকায় রোববারের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে প্রায় শত কোটি টাকার বেশি। আর চট্টগ্রামে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় সোমবার দ্বিগুণ বেড়েছে।

সোমবার পুঁজিবাজারের উত্থানের পেছনে বিভিন্ন ব্যাংকের শেয়ারের দাম বৃদ্ধি ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। এদিন ব্যাংকগুলোর শেয়ারের দাম ৫ থেকে ৯ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। গেল মাসে অতিরিক্ত বিনিয়োগ করায় কয়েকটি ব্যাংককে জরিমানা করেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। আবার কিছু ব্যাংককে নজরদারিতেও রাখা হয়েছিল। এর প্রভাবে কমতে শুরু করেছিল ব্যাংকের শেয়ারের দাম। তবে আবারো ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে ব্যাংকের শেয়ার।

সূচকের উত্থানের পাশাপাশি দুই পুঁজিবাজারে লেনদেনও বেড়েছে। ঢাকায় লেনদেন আবারো ছয়শো কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। রোববারের ৫৩৮ কোটি টাকার লেনদেন সোমবার একশো কোটির বেশি বেড়ে হয়েছে প্রায় ৬৭২ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে রোববার আগের কার্যদিবসের তুলনায় লেনদেন অর্ধেকে নেমে গেলেও সোমবার তা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। রোববারের ২৯ কোটি টাকার লেনদেন সোমবার বেড়ে হয়েছে ৫৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা।

সূচকে বড় উত্থান থাকলেও সোমবার লেনদেন হওয়া শেয়ারের মধ্যে দরপতনের সংখ্যাই বেশি ছিল। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ১১৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বেড়েছে, কমেছে ১৭০টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৪৪টি প্রতিষ্ঠানের দাম। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে দাম বেড়েছে ১০৫টির, কমেছে ১০৯টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ২৬টি।

সোমবার পুঁজিবাজারে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বাড়ার শীর্ষে ছিল প্রকৌশল, প্লাস্টিক, চামড়া, তথ্যপ্রযুক্তি, আবাসন, ব্যাংক খাতের প্রতিষ্ঠানগুলো। আর দরপতনে শীর্ষে ছিল ইন্স্যুরেন্স, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, বস্ত্র, তৈরি পোশাক ও ওষুধ খাতের প্রতিষ্ঠান। ঢাকায় দর বৃদ্ধিতে শীর্ষে ছিল বস্ত্র খাতের স্টাইলক্র্যাফট আর দরপতনে শীর্ষে ছিল প্রকৌশল খাতে সাভার রিফ্যাক্টরিজ লিমিটেড। চট্টগ্রামে দরবৃদ্ধিতে শীর্ষে ছিল প্রকৌশল খাতের ওয়িমেক্স ইলেকট্রোড আর দরপতনে শীর্ষে ছিল ইন্স্যুরেন্স খাতের প্রতিষ্ঠান নর্দান ইন্স্যুরেন্স।

print